myUpchar प्लस+ सदस्य बनें और करें पूरे परिवार के स्वास्थ्य खर्च पर भारी बचत,केवल Rs 99 में -

গ্রিন টি

একদা আমজনতার কাছে যা ছিল অজানা, কিন্তু এখন গ্রিন টি লক্ষ লক্ষ মানুষের প্রাতঃকালীন কর্মকান্ডের এক আবশ্যিক অঙ্গ হয়ে উঠেছে আজকাল। যে নিষ্ঠার সঙ্গে চা আমাদের জীবনে জুড়ে গিয়েছে তাতে স্বাস্থ্য-বর্ধক পানীয় থেকে চা নান্দনিক মানে উন্নীত হয়েছে । আমি বাজি রাখতে পারি, আপনার ইতিমধ্যে অনুভূতি হচ্ছে যে এর উপকারিতা জানা সত্ত্বেও কেন আমি এটি ব্যবহার করিনা। যদি আপনি কোন কারণে এর স্বাদ অপছন্দ করেন তবুও আপনি অস্বীকার করতে পারবেন না যে পানীয় হিসাবে এই চা, প্রায় প্রতিটি ঘরে জায়গা করে নিয়েছে।

আপনি কি জানতেন?

চায়ের উৎপত্তি হাজার হাজার বছর আগে প্রাচীন চীনদেশে। যেখানে, “দৈবক্রমে” এবং অদ্ভুত সব ঘটনাপ্রবাহের মধ্যে পৌরাণিক সম্রাট শেনং (Shennong) দ্বারা এটি আবিষ্কৃত হয় বলে এটা দাবী করা হয়। মজার ব্যাপার হল, “চীনা চিকিৎসাশাস্ত্রের জনক” হিসাবেও শেনংকে অভিহিত করা হয়। তাহলে এটা কী ছিল বাস্তবক্ষেত্রে একটা আকস্মিক ঘটনা অথবা একটা সুচিন্তিত ফর্মুলা? উত্তরটি ইতিহাসের গর্ভে কোথাও লুকিয়ে আছে চা-প্রেমিকদের অন্বেষণের জন্য। চীন থেকে, চা-সংস্কৃতি জাপানে ছড়িয়ে পড়ে এবং শীঘ্রই তা সারা বিশ্ব অন্বেষণ করার জন্য পাড়ি দেয়। অবশ্য, ভারতবর্ষে, চায়ের প্রকৃত ইতিহাস তেমন স্পষ্ট নয়। যতটুকু জানা যায়, বৃটিশ ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর দ্বারা বাণিজ্যিকীকরণের বহু আগে থেকেই ভারতে বুনো চা (সম্ভবতঃ গ্রিন টি) পান করা হ’ত।

  1. গ্রিন টি-এর প্রকারভেদ এবং ব্যবহার - Green tea types and use in Bengali
  2. সবুজ চা তৈরির পদ্ধতি - How to make green tea in Bengali
  3. গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Benefits of green tea in Bengali
  4. সবুজ চা-এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া - Green Tea Side Effects in Bengali
  5. একেক দিনে কত কাপ গ্রিন টি খাওয়া যেতে পারে? - How many cups of green tea can be taken per day? in Bengali

গ্রিন টি সম্পর্কে আমাদের সবার অনেক প্রশ্ন থাকে যেমন কোথা থেকে আমরা চা পাই ? গ্রিন টি কী ? গ্রিন টি থেকে অন্যান্য চা কিভাবে আলাদা? আপনার নিত্যদিনের চা থেকে এটা কি আলাদা?  যদি তাই হয় তাহলে কিভাবে? চলুন এই প্রশ্নগুলোর এক এক করে উত্তর আপনাদের জন্য দেবার চেষ্টা করা যাক।

আপনারা জেনে আশ্চর্য হবেন যে সব ধরণের চা ক্যামেলিয়া সিনেনসিস বা সাধারণভাবে অভিহিত “চা গাছ” নামক একটিমাত্র উদ্ভিদ থেকে প্রস্তুত হয়। অক্সিডেশনের যে মাত্রার মধ্য দিয়ে কাঁচা চা পাতাগুলি যায় সেখান থেকেই পার্থক্য সৃষ্টি হয়। আদর্শগতভাবে, ব্ল্যাক টি হল সবচেয়ে বেশী অক্সিডাইজড এবং গ্রিন টি হল আনঅক্সিডাইজড। বিখ্যাত উলং টি আংশিকভাবে অক্সিডাইজড, অন্যদিকে আরও কয়েক প্রকারের চা আছে যেগুলি গাঁজানো কিন্তু সবসময় অক্সিডাইজড নয় (পুয়ের টি)।

এখন, অক্সিডেশনের জীবতাত্ত্বিক পরিভাষা চা সম্পর্কে আপনার উপলব্ধি এবং আপনার মধ্যে আসছে কি? চলুন ব্যাখ্যা করা যাক। অক্সিডেশন হল খাদ্যবস্তুর দ্বারা অক্সিজেনের শোষণ যা খাদ্যবস্তুর জৈবরসায়ন বদলগুলি ঘটায়, এক্ষেত্রে কাঁচা চা পাতা। কখনও কি লক্ষ্য করে দেখেছেন কেটে ফেলে রাখার পর আপেল বাদামী রঙের হয়ে যেতে? সেটাই অক্সিডেশন। যদিও, চা তৈরীর ক্ষেত্রে, ঘরগুলির তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা পর্যবেক্ষণ করে, অক্সিডেশন আংশিকভাবে প্রাকৃতিক এবং আংশিকভাবে করা হয় নিয়ন্ত্রিত অবস্থায়। একবার পাতাগুলি অক্সিডেশনের একটা নির্দিষ্ট মাত্রায় পৌঁছে গেলে, একটা বিশেষ গরম করার পদ্ধতির দ্বারা প্রক্রিয়াটা বন্ধ করা হয়। যাই হোক, অক্সিডেশন একটা প্রাকৃতিক প্রক্রিয়া এবং এটা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করা যায়না কিন্তু, এটাকে ভালোরকম কার্যকারী স্থায়িত্বকাল দেবার জন্য মন্থর করা যেতে পারে।       

আপনার প্রতিদিনকার চা সাধারণতঃ দুধের সঙ্গে ফোটানো এবং তাতে চিনি মেশানো ব্ল্যাক টি হয়ে থাকে। কিছু ব্যক্তি আছেন যাঁরা দাবি করেন যে দুধ এবং চিনি যোগ করলে স্বাস্থ্যের পক্ষে লাভের চেয়ে ক্ষতি হয় বেশি কিন্তু বিপরীত দাবিও সেই সাথে আছে। সুতরাং বৈজ্ঞানিক প্রমাণের অভাবে, আমরা একজন পুষ্টিবিদের মতামত নিতে পারি আপনার শরীরের গঠনের পক্ষে কোনটি বেশি উপযোগী।    

হার্বাল টি চা গাছের পরিবর্তে বিভিন্ন ধরণের উদ্ভিদ যেমন হিবিস্কাস (জবা), জেসমিন (জুঁই), ক্যামোমোমাইল থেকে প্রস্তুত করা হয়। সুতরাং সেগুলিকে গ্রিন টি বলে গণ্য করা হয়না। যাই হোক, মিন্ট (পুদিনা) গ্রিন টি, জেসমিন গ্রিন টি, লেমন গ্রিন টি ইত্যাদি বহু ধরণের গ্রিন টি-এর ফ্লেভার বাজারে পাওয়া যায়। প্রোডাক্ট-এর অকৃত্রিমতা লেবেল দেখে সর্বদা পরীক্ষা করা বাঞ্ছনীয়। (পুয়ের টি)।

বিভিন্ন ধরণের ব্র্যান্ডের লুজ গ্রিন টি বাণিজ্যিকভাবে পাওয়া যায়। যাই হোক, আপনি যদি একজন চা-অনুরাগী হন এবং বিশেষ ধরণের চায়ের খোঁজ করেন তাহলে তা টি ব্যাগ, গ্রিন টি পাউডার, ক্যাপসুল এবং ট্যাবলেটের আকারে সহজেই কিনতে পারেন।

ক্যাফিনবিহীন (ডিক্যাফিনেটেড) গ্রিন টি হল এক ধরণের গ্রিন টি যেটিকে ক্যাফিন অপসারণের অন্য পরিস্রুত করা হয়েছে। যদিও সেইসমস্ত ব্যক্তি যাঁরা ক্যাফিন সহ্য করতে পারেন না তাঁদের পক্ষে এটা একটা বেশি ভাল বিকল্প হিসাবে বিবেচনা করা হয়, এটা চায়ের মধ্যে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টগুলির সংখ্যা কিন্তু কমিয়ে দেয়। কিন্তু ক্যাফিন-বিমুক্ত গ্রিন টি এবং স্বাভাবিক গ্রিন টি-র মধ্যে পার্থক্য চিহ্নিত করার জন্য কোনও সমীক্ষা হয়নি।

গ্রিন টি-এর প্রকারভেদ

চায়ের দুনিয়ার দরজায় পা রাখলে, এটা লোকে উপলব্ধি করে যে এটা চায়ের নিজস্ব দুনিয়ার মতোই বড়, যদি তার থেকে বড় নাও হয়। জাপান একাই অন্ততঃ চায়ের 10টি বিখ্যাত ধরণের চা উৎপাদন করে থাকে। আমরা যদি চায়ের প্রকারভেদগুলির তালিকা করা শুরু করি তাহলে তার প্রতিবেদন করতে পুরো একটি নতুন নিবন্ধ লাগবে, কে জানে হয়তো বেশিও লাগতে পারে। তবুও, জানার জন্য, ব্যবসায় লভ্য এমন কয়েকটি পরিচিত ধরণ নিয়ে আমাদের গবেষণা করা উচিত।

  • সেনচা গ্রিন টি:
    সেনচা (Sencha) হল জাপানি গ্রিন টি-এর সবচেয়ে পরিচিত রূপ এবং সবচেয়ে সহজে তৈরি করা যায়। কাঁচা পাতাগুলিকে তারপর সেগুলির পরম্পরাগত রূপ দেওয়ার জন্য ভাপানো হয়, রোল করা হয় এবং অক্সিডেশন বন্ধ করার জন্য শুষ্ক করা হয়। তারপর পাতাগুলিকে এক কাপ জলের সঙ্গে ফোটানো হয় পান করার জন্য।
  • গিয়োকুরো গ্রিন টি:
    এই ভ্যারাইটির চা প্রক্রিয়াকরণের ক্ষেত্রে সেনচা থেকে আলাদা। তোলার সময় অন্ততঃ 20 দিন আগে থেকে গাছগুলি একটি কাপড়ে ঢাকা হয়। এটা পাতাগুলিতে ক্যাটেচিন-এর (স্বচ্ছ যৌগ) সংখ্যা কমাবার জন্য করা হয় যা চাকে বেশি স্বাদযুক্ত করে। আর এক ধরণের চা, কাবুসেচা (Kabusecha), একইভাবে বড় হয় কিন্তু চাগাছগুলিকে মাত্র এক সপ্তাহের জন্য ঢেকে রাখা হয়।
  • মাচা গ্রিন টি:
    মাচা গ্রিন টি হলো আর এক ধরণের পেষাই করা (গুঁড়ো) গ্রিন টি যা টেনচা (Tencha) নামে পরিচিত। টেনচা (Tencha) গিয়োকুরো-এর মত ছায়ায় বড় হয়, কিন্তু এদের ঢেকে রাখার সময় 20 দিনের চেয়ে বেশি হয়ে থাকে এবং রোলিং না করেই পাতাগুলি শুকানো হয়। টেনচা টি, জাহাজে চালান দেবার ঠিক আগে যখন এটা গুঁড়ো করা হয় তাকে মাচা (matcha) বলে।
  • চাইনিজ গানপাউডার টি:
    এই চাইনিজ গ্রিন টি তার নামটি পেয়েছে এর পাতাগুলি প্রক্রিয়াকরণ এবং ভাপানোর পরে যে সুনির্দিষ্ট আকারে রোল এবং শুষ্ক করা হয় তা থেকে। এটার একটা অদ্ভুত ধোঁয়াটে স্বাদ আছে যা এর একই নামের পক্ষে লাগসই।    

নিখুঁত এক কাপ চা ফুটিয়ে প্রস্তুত করা:

নিখুঁত এক কাপ চা ফুটিয়ে প্রস্তুত করার জন্য চা-প্রেমীদের নিজস্ব অনন্য পদ্ধতি আছে কিন্তু আপনার জন্য এক কাপ উষ্ণ গ্রিন টি তৈরির একটা সাধারণ পদ্ধতি এখানে দেওয়া হলোঃ

  1. 2-3g চা পাতা একটি পাত্রে/টি-পটে রাখুন।
  2. প্যানের মধ্যে প্রয়োজনীয় ফুটন্ত জল ঢালুন (20-100 ml নির্ভর করবে চায়ের উপর এবং আপনার কাঙ্ক্ষিত ফ্লেভারের উপর)
  3. এটিকে এক-দু মিনিট জলে ভিজতে দিন। (কিছু লোক তাদের স্বাদ অনুযায়ী এটিকে বেশিক্ষণ ভিজতে দেওয়া পছন্দ করেন)
  4. ছাঁকুন এবং গরম গরম পরিবেশন করুন,

কিন্তু আপনি যদি খুব বেশি অলস হন, তাহলে এইসব যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে একক এক কাপ টি ব্যাগ ব্যবহার করে ঝঞ্ঝাটবিহীন চা উপভোগ করতে পারেন।

ফুলে যাওয়া চোখ নিরাময়ের জন্য ব্যবহৃত টি ব্যাগ স্থানীয়ভাবে প্রয়োগ করা যেতে পারে।

মাচা গ্রিন টি ফেস মাস্ক তৈরিতে সবচেয়ে বেশি লোকে ব্যবহার করে। তারুণ্য-বর্ধক একটা ফেস মাস্ক তৈরি করার জন্য 1 টেবিল চামচ গ্রিন টি পাউডার ½ টেবিল চামচ মধুর সঙ্গে মেশানো যেতে পারে। 

টি-এর রুটিনে ঝাঁপ দেবার আগে প্রথম যে জিনিসটি আমাদের মনে আসে তা হলোঃ গ্রিন টি কী স্বাস্থ্যকর? অথবা এটি কি এক গুচ্ছ নতুন যুগের অর্থহীন হুজুগ মাত্র। ভালো কথা, সুখবর হলো যে গ্রিন টি সামান্য একটু তিক্ত স্বাদযুক্ত হওয়া বাদ দিলে বিভিন্ন ফ্লেভারে পাওয়া যায়, এবং বেশ কিছু সংখ্যক স্বাস্থ্যসম্বন্ধীয় উপকারিতা আছে। বস্তুতঃ, গ্রিন টি-এর বেশিরভাগ স্বাস্থ্যসম্বন্ধীয় উপকারিতাগুলির দাবীদার হল ক্যাটেচিন নামক এক ধরণের বিশেষ শ্রেণীর জৈবিক যৌগ যা চা পাতার মধ্যে বর্তমান থাকে এবং যেটি চা তৈরির সময় জলে দ্রবীভূত হয়ে যায়। চলুন আমাদের গ্রিন টি-এর কাপে চুমুক দেবার সময় কিছু উপকারিতা অন্বেষণ করে তার ফল লাভ করি।   

  • মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যবৃদ্ধি করেঃ ধারাবাহিক সমীক্ষায়, গ্রিন টি-এর ক্যাটেচিনগুলি মস্তিষ্কের কোষগুলিকে উদ্দীপিত করে, স্মৃতিশক্তি ও ধীশক্তির উন্নতি ঘটায় বলে দেখা গেছে। এটি আবার অ্যালজ্‌হাইমার্স রোগের মত স্নায়ুক্ষয়কারী বিভিন্ন রোগগুলোকে দূরে রাখতে সাহায্য করে।
  • কার্ডিওভাস্কুলার সিস্টেমের পক্ষে হিতকর: গ্রিন টি বিপাক ক্রিয়ার উন্নতি ঘটায় এবং ধমনীগুলিতে প্লাক গঠনে বাধা দেয় যা হল হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোক-এর ঝুঁকির অন্যতম কারণ। এটি আপনার হৃৎপিন্ডের পেশীগুলিকে মজবুতও করে যার ফলে হৃৎপিন্ডের কার্যক্ষমতা বেড়ে যায়।
  • ত্বকের পক্ষে উপকারীঃ চোখের নীচে কালি পড়া এবং চোখ ফুলে যাওয়ার জন্য গ্রিন টি ব্যাগ হলো সবচেয়ে ভালো প্রতিষেধক। এর প্রদাহ-প্রতিরোধী এবং অ্যন্টিঅক্সিড্যান্ট উপাদানগুলি নিশ্চিত করে যে আপনার ত্বক যেন স্বাস্থ্যবান দেখায় এবং একটা প্রখর দীপ্তিতে ঝলমল করে!  
  • ওজন হ্রাস ত্বরান্বিত করে: গ্রিন টি ক্যাটেচিন এবং ক্যাফিনে সমৃদ্ধ যা BMI বৃদ্ধি করে এবং উন্নত BMI মেদ হ্রাস এবং ওজন হ্রাসের সঙ্গে সরাসরি সম্পর্কিত।​
  • মুখের স্বাস্থ্যবর্ধকঃ জীবাণুপ্রতিরোধী হওয়ার জন্য, গ্রিন টি-এর ক্যাটেচিনগুলি আপনার মুখের ক্ষতিকর ব্যাক্টেরিয়াগুলি মেরে ফেলে তার ফলে মাড়ি ও দাঁতের সংক্রমণ বাধা পায়। নিয়মিতভাবে গ্রিন টি পান করা নিঃশ্বাসে রসুনের গন্ধ দূরে রাখতেও সাহায্য করে।
  1. মস্তিষ্কের জন্য সবুজ চা - Green tea benefits for brain in Bengali
  2. ওজন কমাতে গ্রিন টি - Green tea for weight loss in Bengali
  3. হৃদয়ের ওপর গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for heart in Bengali
  4. সবুজ চা হল একটি কার্যকর অ্যান্টিমাইক্রবিয়াল - Green tea is an effective antimicrobial in Bengali
  5. নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধের জন্য গ্রিন টি - Green tea for bad breath in Bengali
  6. ত্বকের জন্য গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for skin in Bengali
  7. চুলের জন্য গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for hair in Bengali
  8. ডায়বিটিসের রুগীদের জন্য গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for diabetes patients in Bengali
  9. আর্থ্রাইটিসে গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits in arthritis in Bengali
  10. অ্যালজাইমার’স-এর ক্ষেত্রে গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits in alzheimer's in Bengali
  11. অটো ইমিউন রোগের জন্য সবুজ চা - Green tea for autoimmune diseases in Bengali
  12. সম্ভাব্য ক্যানসারবিরোধী হিসেবে সবুজ চা - Green tea anti cancer potential in Bengali

মস্তিষ্কের জন্য সবুজ চা - Green tea benefits for brain in Bengali

আপনি কি জানতেন রোজকার এক কাপ চা আপনার মস্তিষ্ক তীক্ষ্ণ করে তোলে? আয়ুর্বেদিক ডাক্তারদের মতে, গ্রিন টি ক্যাফিনে সমৃদ্ধ, যা মস্তিষ্ককোষে সরাসরি উত্তেজক প্রভাব ফেলে। আমাদের মস্তিষ্কের ওপর ক্যাফিনের প্রভাব নির্দিষ্টভাবে বোঝবার জন্য বেশ কয়েকটি গবেষণা করা হয়েছে এবং তাদের প্রত্যেকটিই ইঙ্গিত করে যে ক্যাফিন আমাদের মস্তিষ্কের একটি বিশেষ রাসায়নিকের কার্যকারিতা বন্ধ করে(এডিনসিন)। কমে যাওয়া এডিনসিনের মাত্রা মস্তিষ্ককোষের কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে। গবেষণা ইঙ্গিত করে যে মাঝারি পরিমাণে ক্যাফিন সেবন শুধুমাত্র আমাদের মস্তিষ্কের উত্তেজক হিসেবেই কাজ করে তা নয়, স্মৃতিশক্তি ও মস্তিষ্কের সমন্বয়ও উন্নত করে তোলে।

ওজন কমাতে গ্রিন টি - Green tea for weight loss in Bengali

ওজন কমানোর ক্ষেত্রে গ্রিন টি-এর প্রভাব কি আপনি সম্প্রতি শুনেছেন? আপনাকে কি কেউ বলেছে এই সম্পূরক কতটা বিস্ময়করভাবে কাজ করেছে তাদের জন্য। আপনি এখনও পর্যন্ত এর কোন ভালো প্রতিক্রিয়া পেয়ে না থাকলে অনুসন্ধান করুন। অনুসন্ধান করলে আপনি এর উপকারিতা সরাসরি বুঝতে পারবেন। ওজন কমানোর ক্ষেত্রে গ্রিন টি-এর দক্ষতা বোঝার জন্য লোকজনের ওপর একাধিক গবেষণা করা হয়েছে এবং তারা প্রত্যেকেই বলেছেন যে ওজন কমানোর ক্ষেত্রে গ্রিন টি সত্যিই কার্যকর। গ্রিন টি তে আছে ক্যাটচিন ও ক্যাফিন, যা একযোগে কাজ করে দেহের বিপাকব্যবস্থা বাড়ায়। এবং তত্ত্বীয়ভাবে বলতে গেলে, উন্নত বিপাকব্যবস্থার কারণে আমাদের শরীর দ্রুততর শক্তির জ্বলন ঘটায় এবং চর্বি গলাতে সক্ষম হয়। তবে, এই সকল গবেষণায় এক কাপ গ্রিন টি তে থাকা ক্যাটচিন ও ক্যাফিনের চেয়ে পরিমাণ ছিল বেশি। ডাক্তারদের মতে, রোজকার শরীরচর্চা ও স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের উপকারিতার পাল্লা ভারি করে গ্রিন টি। কিন্তু আপনি যদি ভাজাভুজি খান ও অস্থির জীবনযাপন করে থাকেন, যতই প্রচার হয়ে থাকুক না কেন, গ্রিন টি কোন অলৌকিক প্রতিনিধি নয় যে সেই ক্ষেত্রে চমৎকার ঘটাবে। কার্যকরভাবে ওজন কমাতে হলে শরীরচর্চা ও স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাসের সাথে গ্রিন টি-এর সংযোজন ঘটান। 

হৃদয়ের ওপর গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for heart in Bengali

কার্ডিওভাসকুলার(হৃদয় ও সংবহনতন্ত্র সম্পর্কিত) অসুস্থতা এই শতাব্দীতে ক্রমশ প্রভাবশালী হয়ে উঠেছে। দূষণ, স্থূলতা এবং চাপের মত সমস্যা বেড়ে ওঠার কারণে বৃদ্ধ মানুষদের হওয়া রোগ এখন তরুন প্রজন্মকেও আক্রান্ত করছে সমানভাবে। গবেষণা প্রমাণ করে গ্রিন টি হার্টের সমস্যার সবচেয়ে প্রচলিত কারণগুলির মোকাবিলা করতে সাহায্য করে। গবেষকদের মতে, ফ্রি র‍্যাডিকাল(এক ধরণের অক্সিজেন যা দেহের বিপাকীয় ক্রিয়ার কারণে এবং দূষণ ও চাপের কারণে শরীরে তৈরি হয়)আমাদের শরীরের LDL-এর(কম ঘনত্তের কোলেস্টেরলের)বা বাজে কোলেস্টেরলের সাথে মিশে ক্রমে প্লাক(চর্বির আস্তরণ)তৈরি হয়। এই প্লাকের ফলে রক্তনালীগুলি ক্রমশ সরু হতে থাকে যার ফলে হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের সমস্যা বেড়ে যায়। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে গ্রিন টি এইসব ফ্রি র‍্যাডিকালদের খুঁজে বের করে এবং এই অক্সিডেশন প্রক্রিয়া বন্ধ করে দেওয়ার মাধ্যমে হার্টের সমস্যার সবচেয়ে প্রচলিত কারণগুলি কমিয়ে দেয়। 

সবুজ চা হল একটি কার্যকর অ্যান্টিমাইক্রবিয়াল - Green tea is an effective antimicrobial in Bengali

গবেষণার অগ্রগতির সাথে সাথে মানুষ বেশিরভাগ রোগের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি করে ফেলেছে। যেই রোগ এক সময় দুরারোগ্য ছিল উন্নয়নশীল প্রযুক্তির ফলে আজ তার নিরাময় সম্ভব হয়েছে। তবে এই সাফল্য আমাদের এক অন্যরকম চ্যালেঞ্জের সম্মুখিন করেছে। সেই চ্যালেঞ্জটি হল ড্রাগ-প্রতিরোধী মাইক্রোবের। এমন একটা সময়ে আমাদের দরকার প্রাকৃতিক কিছু পণ্য যা বৃহত্তর পর্যায়ে কাজ করে এইসব মাইক্রোবের বিরধিতার মোকাবিলা করতে। গবেষণা আমাদেরকে দেখিয়েছে যে গ্রিন টি ছত্রাকের, ভাইরাল ও ব্যাকটেরিয়াযাত সংক্রমনের কার্যকরভাবে মোকাবিলা করে। গ্রিন টি-এর এই বৈশিষ্টের কারণ হিসেবে দাবি করা হয় ক্যাটচিনের উপস্তিতিকে যা বেশিরভাগ মাইক্রোবের বৃদ্ধির ওপর হ্রাস টানে এবং রোগ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া মারে। উপরন্তু, গ্রিন টি-এর অ্যান্টিমাইক্রবিয়াল প্রভাবের কারণে এটিকে MRSA(মেথিসিলিন-প্রতিরোধী স্টাফাইলোকোকাস আউরেস)নামক ড্রাগ-প্রতিরোধী ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে কার্যকর হিসেবে দেখা গেছে। যদিও বিশ্বজুড়ে প্রচুর গবেষণা চলছে গ্রিন টি-এর অ্যান্টিমাইক্রবিয়াল বৈশিষ্টের চিকিৎসায় সঠিক ব্যবহার খোঁজার জন্য। 

নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধের জন্য গ্রিন টি - Green tea for bad breath in Bengali

আপনি কি নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধতে ভোগেন? মাড়ির সমস্যা কি আপনাকেও কষ্ট দেয়? সুখবর হল গ্রিন টি-এর ব্যাকটেরিয়ারোধী বৈশিষ্ট আপনাকে এই সমস্যা থেকে উদ্ধার করতে পারে। ডাক্তারেরা বলে থাকেন যে মাড়ি বা দাঁতে সংক্রমণই নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধের প্রধান কারণ। একটি গবেষণা অনুযায়ী গ্রিন টি থাকা ক্যাটচিন আপনার মুখের ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলার মাধ্যমে নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধের সমস্যা দূরীভূত করে। উপরন্তু, গ্রিন টি-এর দুর্গন্ধনাশক প্রভাব পেঁয়াজ বা রসুনের মত কিছু মজ্জাগতভাবে সালফারে সমৃদ্ধ খাবার খাওয়ার ফলে হওয়া নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধের সমস্যার মোকাবিলা করে। 

ত্বকের জন্য গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for skin in Bengali

আপনাকে কি উজ্জ্বল দেখাচ্ছে নাকি এটা চায়ের প্রভাব? গতানুগতিক শোনায় তাই না। তবে গ্রিন টি-এর নিয়মিত সেবন এই স্বপ্নকে সত্যি করে তুলতে পারে। গবেষণা প্রমাণ করে যে গ্রিন টি-এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং প্রদাহরোধী বৈশিষ্ট এটিকে একটি আদর্শ বার্ধক্যরোধী খাবার করে তোলে। নিয়মিত গ্রিন টি-এর সেবন শরীরে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বাড়িয়ে তোলে বলে শোনা যায় যেটি বলিরেখা, সুক্ষ রেখা ও অকালে আসা বার্ধক্যের অন্যান্য চিহ্নের বিরুদ্ধে প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তোলে। উপরন্তু, গ্রিন টি ব্যাগের সাময়িক প্রয়োগ ফুলে ওঠা চোখের সুপরিচিত প্রতিকার। মেডিকাল অনুশীলনকারীদের মতে, গ্রিন টি-তে থাকা ক্যাফিন চোখের চারধারের স্নায়ু সংকুচিত করে, যার ফলে চোখের চারধারের ফোলাভাব কমে ও সঞ্চালন বাড়ে। তাই এরপর যখন দীর্ঘ সময় কাজের পর আরাম করার দরকার পড়বে, ক্লান্ত চোখগুলিকে একটি ব্যবহৃত গ্রিন টি-এর ব্যাগ দিয়ে জুড়িয়ে নিন। 

চুলের জন্য গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for hair in Bengali

গ্রিন টি হল ভিটামিনের একটি সমৃদ্ধ উৎস, বিশেষতঃ ভিটামিন বি, সি ও ই, এই তিনটি একসাথে চুলের গোড়ায় পুষ্টি জুগিয়ে চুল গজাতে সাহায্য করে। উপরন্তু, ভিটামিন সি, যেটি একটি শক্তিশালি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, গ্রিন টি তে থাকা ক্যাটচিনের সাথে একাধারে কাজ করে চুল পড়ার বিরুদ্ধে লড়ে যা অক্সিডেটিভ ক্ষতির কারণে হয়ে থাকে। জন্তু জানোয়ারদের ওপর ও গবেষণাগারে হওয়া কিছু গবেষণা ইঙ্গিত করে যে গ্রিন টি পুংলিঙ্গ ও স্ত্রীলিঙ্গ উভয়ের ক্ষেত্রেই টেস্টোস্টেরন-প্রভাবিত চুল পড়া ও টাক পড়ে যাওয়ার চিকিৎসায় ভীষণভাবে কার্যকর। যদিও, মানুষের ওপর প্রভাবের প্রমাণ না থাকার দরুন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিতে বলা হয় গ্রিন টি যে কোন প্রকারে চুলে ব্যবহার করার আগে। 

ডায়বিটিসের রুগীদের জন্য গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits for diabetes patients in Bengali

সাম্প্রতিক কিছু গবেষণা দাবি করে যে গ্রিন টি শরীরের ইনসুলিন সংবেদনশীলতা বাড়ায়। গ্রিন টি-এর নিয়মিত সেবন এই হরমোনটিকে(ইনসুলিন) রক্ত থেকে আরও বেশি পরিমাণে গ্লুকোজ টেনে নিতে সক্ষম করে তোলে যার ফলে শরীরে থাকা রক্তের শর্করাভাব কমে যায়। জাপানি জনসংখ্যার ওপর হওয়া আরেকটি গবেষণা দাবি করে যারা নিয়মিত গ্রিন টি সেবন করেন, তাদের ডায়বিটিস হওয়ার আশঙ্কা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে কম।

আর্থ্রাইটিসে গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits in arthritis in Bengali

একগুচ্ছ গবেষণা অনুযায়ী গ্রিন টি আর্থ্রাইটিসবিরোধী থেরাপির জন্য ভীষণভাবে কার্যকর। এই গবেষণাগুলি ইঙ্গিত করে গ্রিন টি-তে পলিফেনল নামক এক বিশেষ শ্রেণির জৈব যৌগ আছে বিশেষতঃ EGCG(এপিগ্যালোক্যাটেচিন-3 গ্যালেট)যেটি একটি অত্যন্ত শক্তিশালী প্রদাহরোধী ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এটি গাঁটের ফুলে যাওয়া ও ব্যথা কমায়, যেগুলি আর্থ্রাইটিসের প্রধান দুটি বেদনাদায়ক লক্ষণ। যুক্তরাষ্ট্রে হওয়া আরেকটি গবেষণা নিশ্চিত করে আর্থ্রাইটিসবিরোধী চিকিৎসায় EGCG-এর কার্যকারিতা। অস্টিওপরোসিসের মত হাড়ের অসুস্থতার লক্ষণগুলি দূরীভূত করতে গ্রিন টি-তে থাকা ফ্লোরাইডের প্রভাব বোঝার সাথে সাথে EGCG-এর হাড় সংরক্ষণকারী বৈশিষ্ট্যগুলিও ব্যাপকভাবে খতিয়ে দেখা হয়েছে। তবে এই ড্রাগটির ডোজ এবং প্রশাসন বা মানুষের স্বাস্থ্যের ওপর এর সম্ভাব্য প্রভাব বোঝবার মত পর্যাপ্ত প্রমাণ নেই। সেই কারণে আর্থ্রাইটিস-কবলিত রুগীদের গ্রিন টি-এর আর্থ্রাইটিসের ওপর প্রভাব বোঝার জন্য ডাক্তারের সাথে কথা বলে নেওয়া বাঞ্ছনীয়।

অ্যালজাইমার’স-এর ক্ষেত্রে গ্রিন টি-এর উপকারিতা - Green tea benefits in alzheimer's in Bengali

অ্যালজাইমার’সপারকিনসন্স-এর মত নিউরোডিজেননিটিভ রোগ(সেই রোগ যা মস্তিষ্ককোষ মেরে ফেলে)আজকাল অত্যন্ত সাধারণ ব্যাপার। মস্তিষ্ককোষ মরে যাওয়ার ফলে মানুষের মধ্যে চেতনার লোপ ও ডিমেনশিয়ার লক্ষণ দেখা দেওয়া শুরু করে। সাম্প্রতিক কিছু গবেষণা ইঙ্গিত করে গ্রিন টি-এর নির্যাসের নিউরোডিজেননিটিভ অসুখের লক্ষণগুলি দূরীভূত করার ক্ষেত্রে থেরাপিউটিক মান অত্যন্ত উচ্চ। গবেষণা এও প্রমাণ করে যে গ্রিন টি তে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের বৈশিষ্ট্য খানিকটা দায়ি স্নায়ুসুরক্ষার(মস্তিষ্ককোষ সুরক্ষিত রাখে ও নিউরনের ক্ষতি আটকায়)জন্য।

অটো ইমিউন রোগের জন্য সবুজ চা - Green tea for autoimmune diseases in Bengali

অটোইমিউন রোগ হল এমন একটি অবস্থা যখন আমাদের রোগ প্রতিরোধকতন্ত্র নিজস্ব কোষগুলির বিরুদ্ধেই অ্যান্টিবডি তৈরি করে। দুর্বল হয়ে যাওয়া শরীর ও প্রতিরোধকতন্ত্র একাধিক সাধারণ সংক্রমণের দিকে ঝোঁকে। এটা বলে রাখা দরকার যে একজন সাধারণ রুগীর থেকে প্রতিরোধকতন্ত্র বিকল হয়ে যাওয়া রুগীর চিকিৎসা করা বেশি কঠিন কারণ তার নিজের প্রতিরোধ শক্তি তারই বিরুদ্ধে কাজ করে চলেছে। ওরেগন স্টেট ইউনিভার্সিটি প্রকাশিত একটি প্রবন্ধ অনুযায়ী প্রতিরোধশক্তি বাড়িয়ে তোলার ক্ষেত্রে গ্রিন টি অত্যন্ত কার্যকর। এই প্রবন্ধটি প্রস্তাব করে যে গ্রিন টি তে থাকা কিছু যৌগ রয়েছে যা নিয়ন্ত্রক টি কোষের সংখ্যা বাড়িয়ে তোলে(একটি বিশেষ ধরণের কোষ যা প্রতিরোধকতন্ত্রকে নিজস্ব কোষগুলিকে আক্রমন করা থেকে আটকায়)। টি কোষের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার ফলে প্রতিরোধকতন্ত্রকে দেহের সাধারণ কোষগুলিকে আক্রমন করা থেকে আটকায় যাতে অটোইমিউন রোগের তীব্রতা কমে যায়। 

সম্ভাব্য ক্যানসারবিরোধী হিসেবে সবুজ চা - Green tea anti cancer potential in Bengali

স্তন ক্যানসার হল বিশ্বজুড়ে নারীদের মধ্যে মৃত্যুহারের প্রধান কারণ। বিস্তর ওষুধ থাকা সত্ত্বেও এই ক্রমে বেড়ে ওঠা সমস্যার সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে, বিশেষতঃ উচ্চ ঝুঁকিসম্পন্ন ব্যক্তিদের মধ্যে(যাদের পরিবারে স্তন ক্যানসারের ইতিহাস রয়েছে)। সাম্প্রতিক কিছু গবেষণার প্রস্তাব অনুযায়ী স্তন ক্যানসার দমনকারী ওষুধের সাথে গ্রিন টি-এর প্রশাসন ক্যানসার আক্রান্ত কোষগুলিকে মেরে ফেলতে অত্যন্ত কার্যকর এবং তা ক্যানসারের ছড়িয়ে যাওয়াও রোধ করে। এও প্রস্তাব দেওয়া হয় যে গ্রিন টি তে থাকা ক্যাটচিনই হল ক্যানসার বিরোধী প্রতিনিধি। উপরন্তু ক্যানসার বিরোধী কার্যকলাপের জন্য মূত্রাশয় এবং ফুসফুসে ক্যানসারের বিরুদ্ধে এর কার্যকারিতা খতিয়ে দেখা হচ্ছে, যেখানে একে বিকিরণের জন্য পুড়ে যাওয়ার প্রভাবও কমাতে দেখা গেছে। যদিও ক্যানসার কবলিত কোষগুলির বিরুদ্ধে এর নির্দিষ্ট কাজের কোন প্রমাণ এখনও পাওয়া যায়নি, তাই প্রমানের অভাবের কারণে আরও গবেষণা প্রয়োজন। 

মাঝারি পরিমাণে গ্রিন টি সেবন সুরক্ষিত কিন্তু অতিরিক্ত সেবন করলে বেশ কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারেঃ

  1. গ্রিন টি-তে থাকা ক্যাটচিন এর অন্যতম প্রধান উপাদান। এর ওপর দীর্ঘমেয়াদী নির্ভরতার ফলে লোকজনের মধ্যে দেখা দেয় উদ্বেগ, অনিদ্রা এবং অস্থিরতার মত লক্ষণগুলি।
  2. কিছু ক্ষেত্রে গ্রিন টি-এর অতিরিক্ত সেবন যকৃতের ক্ষতি করে বলে দেখা গেছে। মার্কিন ফার্মাকোপিয়ারে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল যে খালি পেটে গ্রিন টি খাওয়া বিষাক্ত। অন্যান্য কিছু সাম্প্রতিক গবেষণায় বলা হয়েছে যে গ্রিন টি যকৃতের জন্য একেবারেই বিষাক্ত নয়। সুতরাং দেখা যাচ্ছে যে বেশ কিছু দ্বন্দ্বপূর্ণ তথ্য রয়েছে। তবে আপনার যকৃৎ যদি দুর্বল হয়ে থাকে, তাহলে গ্রিন টি খাওয়ার আগে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নেওয়া নিতান্তই বাঞ্ছনীয়।
  3. গ্রিন টি বেশ কিছু চিকিৎসাধীন ওষুধ ও ভেষজ কিছু নিরাময়কারী ওষুধের কাজে হস্তক্ষেপ করে বলে জানা যায়। যদি আপনি নির্ধারণ করে দেওয়া ওষুধ খেয়ে থাকেন, তাহলে ডাক্তারের সাথে কথা বলে নেওয়া বাঞ্ছনীয়।
  4. আপনি যদি রক্তাল্পতায় ভোগেন, তাহলে আপনার গ্রিন টি খাওয়া উচিৎ নয় কারণ জানা গেছে যে গ্রিন টি রক্তে থাকা লোহা শুষে নেয়।
  5. গ্রিন টি রক্তে শর্করাভাব কমায় বলে জানা যায়। তাই ডায়বিটিস আক্রান্ত রুগীরা যারা নির্ধারণ করে দেওয়া ওষুধ খান তারা তাদের ক্ষেত্রে গ্রিন টি-এর সঠিক পরিমাণ জানার জন্য ডাক্তারের সাথে অবশ্যই পরামর্শ করে নিন।
  6. দিনে 2 কাপের বেশি গ্রিন টি সেবন করলে তা শরীর থেকে ক্যালসিয়াম নিষ্কাসন করে দিয়ে হাড় দুর্বল করে দেয়। তাই গ্রিন টি সবসময় মাঝারি পরিমাণে সেবন করা উচিৎ।
  7. গর্ভাবস্থার সময় গ্রিন টি সেবন অসুরক্ষিত ধরা না হলেও এতে ক্যাফিন রয়েছে যা মাঝারি পরিমাণে সেবন করা উচিৎ। আপনি গর্ভবতী হলে ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে আপনার ক্ষেত্রে গ্রিন টি-এর সঠিক পরিমাণ জেনে নেওয়া একান্তই গুরুত্বপূর্ণ।
  8. গ্রিন টি ক্যাফিনে সমৃদ্ধ, তাই বাচ্ছাদের এটি না দেওয়াই ভালো।

দিনে 1-2 কাপ হলে গ্রিন টি সেবন নিরাপদ বলে বিবেচিত হয়। যদিও পৃথক ব্যক্তির চেহারার ধরণ, দেহতত্ব ও ঋতু অনুযায়ী সঠিক পরিমাণ ভিন্ন হতে পারে। সুতরাং গ্রিন টি নিজের খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার আগে একজন পুষ্টিবিজ্ঞানীর সাথে পরামর্শ করে নেওয়া ভালো।

Medicine NamePack SizePrice (Rs.)
Himalaya Green TeaGreen Tea Sachet48.0
और पढ़ें ...

References

  1. Sabu M Chacko. Beneficial effects of green tea: A literature review. Chin Med. 2010; 5: 13. PMID: 20370896
  2. Nehlig A1, Daval JL, Debry G. Caffeine and the central nervous system: mechanisms of action, biochemical, metabolic and psychostimulant effects.. Brain Res Brain Res Rev. 1992 May-Aug;17(2):139-70. PMID: 1356551
  3. Dietz C1, Dekker M1. Effect of Green Tea Phytochemicals on Mood and Cognition. Curr Pharm Des. 2017;23(19):2876-2905. PMID: 28056735
  4. Nobre AC1, Rao A, Owen GN. L-theanine, a natural constituent in tea, and its effect on mental state. Asia Pac J Clin Nutr. 2008;17 Suppl 1:167-8. PMID: 18296328
  5. Yiannakopoulou ECh. Green tea catechins: Proposed mechanisms of action in breast cancer focusing on the interplay between survival and apoptosis. Anticancer Agents Med Chem. 2014 Feb;14(2):290-5. PMID: 24069935
  6. Miyata Y. Anticancer Effects of Green Tea and the Underlying Molecular Mechanisms in Bladder Cancer. Medicines (Basel). 2018 Aug 10;5(3). pii: E87. PMID: 30103466
  7. Fritz H. Green tea and lung cancer: a systematic review. Integr Cancer Ther. 2013 Jan;12(1):7-24. PMID: 22532034
  8. Sueoka N. A new function of green tea: prevention of lifestyle-related diseases. Ann N Y Acad Sci. 2001 Apr;928:274-80. PMID: 11795518
  9. Liu K. Effect of green tea on glucose control and insulin sensitivity: a meta-analysis of 17 randomized controlled trials. Am J Clin Nutr. 2013 Aug;98(2):340-8. PMID: 23803878
  10. Haqqi TM. Prevention of collagen-induced arthritis in mice by a polyphenolic fraction from green tea. Proc Natl Acad Sci U S A. 1999 Apr 13;96(8):4524-9. PMID: 10200295
  11. Chwan-Li Shen, James K. Yeh, Jay Cao, Jia-Sheng Wang4. Green Tea and Bone metabolism. Nutr Res. 2009 Jul; 29(7): 437–456. PMID: 19700031
  12. Steinmann J1, Buer J, Pietschmann T, Steinmann E. Anti-infective properties of epigallocatechin-3-gallate (EGCG), a component of green tea. Br J Pharmacol. 2013 Mar;168(5):1059-73. PMID: 23072320
  13. Lodhia P. Effect of green tea on volatile sulfur compounds in mouth air. J Nutr Sci Vitaminol (Tokyo). 2008 Feb;54(1):89-94. PMID: 18388413
  14. Weinreb O1, Mandel S, Amit T, Youdim MB. Neurological mechanisms of green tea polyphenols in Alzheimer's and Parkinson's diseases. J Nutr Biochem. 2004 Sep;15(9):506-16. PMID: 15350981
  15. Zong-mao Chen, Zhi Lin. Tea and human health: biomedical functions of tea active components and current issues. J Zhejiang Univ Sci B. 2015 Feb; 16(2): 87–102. PMID: 25644464
  16. Kim YY. Effects of topical application of EGCG on testosterone-induced hair loss in a mouse model.. Exp Dermatol. 2011 Dec;20(12):1015-7. PMID: 21951062
  17. Kwon OS et al. Human hair growth enhancement in vitro by green tea epigallocatechin-3-gallate (EGCG).. Phytomedicine. 2007 Aug;14(7-8):551-5. Epub 2006 Nov 7. PMID: 17092697
ऐप पर पढ़ें