myUpchar प्लस+ सदस्य बनें और करें पूरे परिवार के स्वास्थ्य खर्च पर भारी बचत,केवल Rs 99 में -

ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সার কি?

ওরোফ্যারেনজিয়ালক্যান্সার, সাধারণত গলার ক্যান্সার হিসাবে পরিচিত, যা মুখের পিছনে দিকে - নরম তালু, টনসিল, জিহ্বার এক-তৃতীয়াংশ এবং ফেরিংক্স বা গলবিলকে আক্রান্ত করে। এই ক্যান্সার আক্রান্ত ব্যক্তির শ্বাসপ্রশ্বাস,খাদ্যগ্রহন ও কথা বলার ক্ষমতায় বাধা সৃষ্টি করে। ভারতে সবচেয়ে সাধারন তিনটি ক্যান্সারের মধ্যে আছে মুখের ক্যান্সার, যাতে মহিলাদের তুলনায় পুরুষরা বেশি আক্রান্ত হয়। এটি বেশি দেখা যায় মাঝ বয়সী ও নিম্ন আয়ের গোষ্ঠীর মানুষের মধ্যে যারা বেশি ঝুঁকির কারণগুলির সংস্পর্শে আসেন, যেমন তামাক সেবন।

এর প্রধান লক্ষণ ও উপসর্গগুলি কি কি?

সাধারণত, এই ক্যান্সার প্রাথমিক পর্যায়ে নজরে পড়ে না কারণ এটি ব্যথাহীন, এতে সামান্য কিছু শারীরিক পরিবর্তন দেখা যায় তা প্রায়শই উপেক্ষা করা হয়। লিম্ফ নোড এবং অন্যান্য অঙ্গে ক্যান্সারের বিস্তারের ভিত্তিতে ক্যান্সারের 4 টি স্তর এক্ষেত্রে পরিলক্ষিত হয়।

এই ক্যান্সারের সাধারণ উপসর্গগুলি হল:

  • খাবার চিবাতে/গিলতে অসুবিধা ও জলপান করতে অসুবিধা।
  • চোয়ালে শক্তভাব এবং সম্পূর্ণ মুখ খুলতে অসুবিধা
  • গলা ব্যথা
  • মুখের ভিতর ঘা/ আলসারের নিরাময় না হওয়া।
  • টিউমার আক্রান্ত অঞ্চলে ফোলাভাব
  • জিহ্বা নাড়াতে অসুবিধা।
  • দাঁত নড়া বা দাঁতে ব্যথা
  • ঘাড়ে ও কানে ব্যথা।
  • কর্কশ কণ্ঠ।
  • অস্বাভাবিক ওজন হ্রাস।
  • অবসাদ এবং ক্ষুধামান্দ্য।
  • মুখ, গলা অথবা ঘাড়ের পিছনে একটি ফোলা অংশ সৃষ্টি।
  • জিহ্বা অথবা মুখের উপরিত্বকে সাদা/লাল ছোপ বা প্যাচ।
  • কাশির সাথে রক্ত।

এর প্রধান কারণগুলি কি কি?

বেশিরভাগ ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সারের প্রধান ঝুঁকিপূর্ণ কারণ হল তামাকের ব্যবহার। অতিরিক্ত মদ্যপানও ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সারের অন্যতম কারণ। মদ্যপানের সাথে ধূমপান যৌথভাবে ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সারের ঝুঁকি বহুগুণ বাড়াতে পারে।

ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সারের অন্যান্য কারণগুলি হল:

  • হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস ( এইচপিভি) সংক্রমণ।
  • ঠোঁট আলট্রাভায়োলেট রশ্মির সংস্পর্শে আসা (সূর্যালোক, সূর্যবাতি)।
  • পূর্বে রেডিওথেরাপি অথবা রেডিয়েশনের সংস্পর্শে আসা।
  • সুপারি চেবানো/ সুপারি পাতা চেবানো।
  • অ্যাসবেস্টস, সালফিউরিক অ্যাসিড এবং ফর্মালডিহাইডের সংস্পর্শে আসা।
  • গ্যাস্ট্রো-এসোফেজাল রিফ্লাক্স রোগ (জিইআরডি)

কিভাবে এটি নির্ণয় করা হয় ও এর চিকিৎসা কি?

ডেন্টিস্ট বা দাঁতের রোগ বিশেষজ্ঞ, ওটোল্যারিনগোলজিস্ট (ইএনটি) এবং মাথা এবং ঘাড়বিষয়ক সার্জন বা শল্যচিকিৎসকেরা হল সেরা বিশেষজ্ঞ যারা ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সারের বা প্রাক-ক্যান্সারের সম্ভাব্য লক্ষণগুলি পরীক্ষা করতে পারেন। ক্যান্সার নির্ণয় করার জন্য বেশ কয়েকটি পদ্ধতির প্রয়োজন হতে পারে এর ধরণ অনুযায়ী:

  • গলা পরীক্ষার সাথে চিকিৎসাগত ইতিহাস এবং ঝুঁকির কারণগুলি সম্পর্কে জানা।
  • এন্ডোস্কপি - ক্ষত/ঘায়ের অবস্থানের ওপর ভিত্তি করে ল্যারিঙ্গোস্কপি / ফ্যারিঙ্গোস্কপি / নাসোফ্যারিঙ্গোস্কপি করা হয়।
  • ওরাল ব্রাশ বায়োপসি।
  • এইচপিভি পরীক্ষা।
  • এক্স-রে।
  • বেরিয়াম গলর্ধকরণ দ্বারা পরীক্ষা।
  • কম্পিউটেড টোমোগ্রাফি (সিটি বা সিএটি) স্ক্যান।
  • ম্যাগনেটিক রিজোন্যান্স ইমেজিং (এমআরআই)।
  • আলট্রাসাউনড।
  • পজিট্রন এমিশন টোমোগ্রাফি ( পিইটি) বা পিইটি-সিটি স্ক্যান।

চিকিৎসাপদ্ধতি নির্বাচন বিভিন্ন বিষয়ের ওপর নির্ভর করে - ক্যান্সারের ধরন এবং পর্যায়, সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এবং সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যের অবস্থার উপর। ক্যান্সারের চিকিৎসা এই এক বা একাধিক প্রক্রিয়ার সাহায্যে করা হতে পারে:

  • অস্ত্রোপচার - প্রাথমিক টিউমারের অস্ত্রোপচার, জিহ্বার অপসারণ (গ্লসেকটমি),চোয়ালের একটি বা সমগ্র অংশের অপসারণ (ম্যানডিবুল্যাকটমি), মুখের শক্ত উপরিতলের একটি বা সমগ্র অংশের অপসারণ (ম্যাক্সিল্যাকটমি), ঘাড়ের ব্যবচ্ছেদ এবং আংশিক বা গোটা ল্যারিংক্সের বা স্বরযন্ত্রের অপসারণ( ল্যারিংজ্যাকটমি)। অপসারণের জন্য অস্ত্রোপচারের পাশাপাশি ট্রানজোরাল রোবোটিক সার্জারি এবং ট্রানজোরাল লেজার মাইক্রোসার্জারি অন্যান্য স্বল্প অস্ত্রোপচারের বিকল্প একটি মাধ্যম।
  • রেডিয়েশন থেরাপি - বহিরাগত বিম রেডিয়েশন বা আভা বিকিরণ এবং অভ্যন্তরীণ রেডিয়েশন বা বিকিরণ থেরাপি মিলে রেডিয়েশন থেরাপি সৃষ্টি হয়।
  • কেমোথেরাপি।
  • ইমিউনোথেরাপি - পেমব্রোলিজুমাব এবং নিভোলুমাবের মতো ওষুধগুলি চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হতে পারে।
  • টার্গেটেড বা লক্ষ্যযুক্ত থেরাপি -টার্গেটেড থেরাপি্তে ক্যান্সার জিন এবং প্রোটিনকে বাধাদান করা হয়।

চিকিৎসার সময়কাল ক্যান্সারের পর্যায়ের ওপর নির্ভর করে। এটি 6 সপ্তাহ থেকে 6 মাসের বেশি সময়কাল ধরে চলতে পারে। ক্যান্সারের চিকিৎসা ব্যয়বহুল হয়, এতে আনুমানিক 3.5 লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে।

ক্যান্সারের চিকিৎসায় প্রায়ই পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। অতএব রোগীদের শারীরিক, মানসিক এবং সামাজিক চাহিদার জন্য সহায়ক যত্ন ও উপশম প্রদান করা হয়। এছাড়াও, জীবনশৈলীতে পরিবর্তন প্রয়োজন - মদ্যপান এবং তামাকের ব্যবহার হ্রাস / এড়িয়ে যাওয়া, সূর্যের আলোতে সরাসরি আসা এড়ানো এবং জাঙ্ক ফুড না খাওয়া, সম্পৃক্ত চর্বিজাতীয় এবং প্রক্রিয়াজাত খাদ্য এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়।

  1. ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সার জন্য ঔষধ

ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সার জন্য ঔষধ

ওরোফ্যারেনজিয়াল ক্যান্সার के लिए बहुत दवाइयां उपलब्ध हैं। नीचे यह सारी दवाइयां दी गयी हैं। लेकिन ध्यान रहे कि डॉक्टर से सलाह किये बिना आप कृपया कोई भी दवाई न लें। बिना डॉक्टर की सलाह से दवाई लेने से आपकी सेहत को गंभीर नुक्सान हो सकता है।

Medicine Name
Bleocel खरीदें
Bleochem खरीदें
Bleocin खरीदें
Bleocip खरीदें
Bleomycin 15 Mg Injection खरीदें
Bleomycin Sulphate खरीदें
Blomin खरीदें
Oncobleo खरीदें
और पढ़ें ...
ऐप पर पढ़ें